বর্ণাঢ্য আয়োজনে সংহতির জয়ন্তী ও সাহিত্য সম্মেলন:  কবি সাহিত্যিকদের মিলন মেলায়  দিনটি ছিল বাংলাভাষা ও বাঙালীর

আনোয়ারুল ইসলাম অভি:

বর্ণাঢ্য আয়োজনে সংহতির রজতজয়ন্তী ও সাহিত্য সম্মেলনটি মূলত কবি সাহিত্যিকদের মিলন মেলা আর সাহিত্য-সংস্কৃতির উৎসবে মেতে উঠেছিল।DSC_3907 বাংলাদেশের প্রথিতযশা কবি সাহিত্যিকদের সাথে বিলেতের কবি সাহিত্যিকদের মৌলিক মেলবন্ধনে মুখরিত ছিল বাঙালী পাড়া। DSC_3871সংহতি তার পঁচিশ বছর পূর্তি উপলক্ষে জয়ন্তী ও সাহিত্য সম্মেলনের  আয়োজন করে। ১ অগাষ্ট বাঙালী পাড়া খ্যাত  পূর্ব লন্ডনের টয়েনবি থিয়েটার হলে অনুষ্ঠিত দিনব্যাপী অনুষ্ঠানে  ছিল  স্বাগত বক্তব্য, অতিথিদের আলোচনা,কবিতা পাঠ, আবৃত্তি, নৃত্য, শিশুশিল্পীদের পরিবেশনা, বাদ্যযন্ত্র সস্তুর এবং সঙ্গীত মুর্ছনায় বিমোহন উৎসবমুখর একটি দিন  ।DSC_3920 রজতজয়ন্তী উৎসবে বাংলাদেশ থেকে আমন্ত্রিত অতিথি হিসেবে যোগদেন বাংলা সাহিত্যে বর্তমান সময়ের জনপ্রিয় কবি, কথাসাহিত্যিক আনিসুল হক, কবি ও গবেষক শোয়াইব জিবরান। এছাড়াও উৎসবে কানাডা থেকে যোগ দেন কবি আব্দুল হাসিব এবং আমেরিকা থেকে কবি জিয়া উদ্দিন । কলকাতা থেকে যোগদেন সানতুর শিল্পী কুনাল সাহা এবং বাংলাদেশ থেকে কণ্ঠ শিল্পী বাদশা বুলবুল এবং শেখ রানা । DSC_3917বিলেতে  বাঙালীর  হীরন্ময় চেতনার প্রতীক পূর্ব লন্ডনের আলতাব আলী পার্ক থেকে দুপুর বারটায় কবুতর -ফেস্টুন উড়িয়ে উৎসবের শুরু হয়ে ব্রিকলেন- বাংলা টাউন হয়ে বর্ণাঢ্য র‌্যালী অনুষ্ঠানস্থল টয়েনবী হলে শেষ হয়। বাংলাদেশ থেকে আমন্ত্রিত অতিথি বাংলা সাহিত্যের বর্তমানDSC_3852সময়ের জনপ্রিয় কথাসাহিত্যিক আনিসুল হক বলেন- পঁচিশ বছর ধরে অভিবাসে চরম ব্যস্ততার মাঝেও একদল সাহিত্যপ্রেমী সাহিত্যের জন্য যেভাবে  কাজ করছে তা আমার কাছে অবিশ্বাস্য মনে হয়। বাঙালীর সবচেয়ে বড় গুণ হচ্ছে তারা যেখানেই যায় তার দেশটা কে সঙ্গে নিয়ে যায়। স্বাধীনতাত্তোর বাংলা সাহিত্য- বিষয় নির্ধারিত বক্তব্যে বলেন -বাংলাদেশ অনেক এগিয়েছে। ভাষা, সাহিত্য, সংস্কৃতি, ক্রীড়া, কৃষি সবক্ষেত্রে আমাদের সাফল্য বিশ্বের অনেক দেশের চেয়ে সেরা। এবং আমরা অদূর ভবিষ্যতে অপ্রতিরুদ্ধ ভাবে এগিয়ে যাব। DSC_4600 আমাদের বাংলাদেশের দুটি দিক আছে, একটি হলো পজিটিভ বাংলাদেশ এবং অন্যটি হলো নেগেটিভ বাংলাদেশ। বড় আশার কথা হলো আমাদের পজিটিভ বাংলাদেশটাই বেশী এবং এখানে আমাদের প্রাণশক্তি তরুণরাই বেশী। গুণী এই কবি কথাসাহিত্যিক কে সংহতি  সংহতি গুণীজন সম্মাননা পদক প্রদান করে। DSC_4032 বাংলা সাহিত্যে আঞ্চলিক ভাষার প্রভাব- বিষয় নির্ধারিত বক্তৃতায় কবি গবেষক  ড.শোয়াইব জিবরান বলেন- বিলেতে বাংলাভাষীরা শক্তভাবে তাদের ভাষার শিকড়কে অর্থাৎ নিজ নিজ অঞ্চলের ভাষাকে ধরে রেখেছেন।যা বাংলা ভাষার জন্য অনেক পাওয়া। DSC_4011 তিনি আঞ্চলিক ভাষার বিভিন্ন উজ্জ্বল দিক তুলে ধরে বলেন- মানুষের ভেতর থেকে উচ্চারিত ভাষাকে কেউ দমিয়ে রাখতে পারেনা।অতিবোদ্ধার মতো যারা আমাদের ভেতরের উচ্চারিত ভাষাকে বাংলা ভাষা বলে মেনে নিতে চাননা তারা  আসলে একটা উপনিবেশিক চিন্তা ও গণ্ডির মধ্যে থেকেই এই সব কথা বলেন। DSC_4130 আশার কথা হলো- মানুষের  হৃদয়নিসৃত ভাষাই যে মূল- তা এখন দুনিয়াব্যাপী গবেষণায় সফল ভাবে উঠে আসতে শুরু করেছে। বিলেতের  সংহতি সাহিত্য সম্মেলন ও সাহিত্য সংস্কৃতিকর্মী অনুরাগীদের উদ্দেশ্যে বলেন- আমি সকাল এগারোটা থেকে এই অনুষ্ঠানে আপনাদের সাথে আছি, এখন রাত দশটা ছুঁই ছুঁই, অথচ হল ভর্তি দর্শক! DSC_4181 ভালোলাগার অনুভূতিটি ভাষায় প্রকাশ করা সম্ভব নয়। গুণী এই কবি, গবেষককে সংহতি বিশেষ সম্মাননা পদক প্রদান করা হয়। DSC_3987 এছাড়াও  মূলধারার কবি ষ্টিফেন ওয়াটস, সাংবাদিক কলামিস্ট আব্দুল গাফফার চৌধুরী, কবি কথা সাহিত্যিক সালেহা চৌধুরী, কবি শামীম আজাদ সংহতির ২৫ বছরের নানা কর্মের প্রসংশা সহ সংহতির সাথে তাদের সম্পৃক্ততা নিয়ে বিভিন্ন বিষয়ে আলোকপাত ও আলোচনায় অংশগ্রহন করেন। DSC_4040 রজতজয়ন্তী ও সাহিত্য সম্মেলনে ইউরোপসহ বিলেতের বিপুল সংখ্যক কবি, সাহিত্যিক, সংস্কৃতি অনুরাগীরা যোগ দেন। ১৯৮৯ সালে প্রতিষ্ঠিত সংগঠনটি বাংলাদেশ ও কলকাতার পর ধারাবাহিকভাবে সবচেয়ে বড় সাহিত্য ও সংস্কৃতির উৎসব এর আয়োজন করে অভিবাসে বাঙালীসহ ও মাল্টিকালচারাল সোসাইটিতে তৈরি করেছে তার স্বতন্ত্র পরিচিতি ও ব্যাপক গ্রহণযোগ্যতা। DSC_4016 বেলা আড়াইটা থেকে রাত এগারোটা পর্যন্ত বিরতিহীন চলা প্রাণবন্ত অনুষ্ঠানটি বিভিন্ন পর্বে উপস্থাপনায় ছিলেন দিলু নাসের, রেজুয়ান মারুফ, মুনিরা পারভিন, শামীম শাহান, ইকবাল হোসেন বুলবুল, শতরুপা চক্রবর্তী। DSC_4074সংহতির পরিবেশনায় কবি ফারুক আহমেদ রনি, আবু তাহের, ইকবাল হোসেন বুলবুল, তুহিন চৌধুরী, আনোয়ারুল ইসলাম অভি  ও আরাফাত তানিম এর  কবিতা আবৃত্তি করেন বিলেতের জনপ্রিয় আবৃত্তিশিল্পী শহিদুল ইসলাম সাগর,মুনিরা পারভিন ও সঞ্চিতা চৌধুরী। শিল্পী কুনাল সাহার  সানতুর এর সাথে কবিতা আবৃত্তির এইপর্বটি ছিল বিলেতে এই প্রথম ভিন্নধর্মী আবৃত্তির পরিবেশনা।DSC_4105 এবারে সংহতি সাহিত্য পদক পেয়েছেন কবি মাশুক ইবনে আনিস। কবিতার জন্য তাকে পুরস্কৃত করা হয়েছে। আজীবন সম্মাননা পদক লাভ করেছেন  বিশিষ্ট কবি ,কথা সাহিত্যিক সালেহা চৌধুরী এবং মূলধারার কবি ষ্টিফেন ওয়াটস। সংহতি মরণোত্তর পদক প্রদান করা হয়েছে- তাসাদ্দুক আহমদ এমবিইকে। বিশেষ সম্মাননা পদক পেয়েছেন-কবি মুস্তাফিজ  শফি, কানাডা থেকে উৎসবে যোগ দেয়া কবি আব্দুল হাসিব, আমেরিকা থেকে  কবি জিয়া উদ্দিন, বাংলাদেশ থেকে সংগীত শিল্পী বাদশা বুলবুল,লেখক,গীতিকার শেখ রানা ,কলকাতা থেকে তরুণ সানতুর শিল্পী কুনাল সাহা।

DSC_4078

অনুষ্ঠানের স্বরচিত কবিতা পাঠ করেন- কবি আতাউর রহমান মিলাদ, ময়নূর রহমান বাবুল, গোলাম কবির,শাহ শামীম ,আবু মকসুদ,কাজল রশিদ, নুরুল হক,শাহ সোহেল,সাগর রহমান,মোহাম্মদ কিবরিয়া,জামিল সুলতান,সৈয়দ রুম্মান,মজিবুল হক মনি, মোহাম্মদ ইকবাল,পলিন মাঝি, মোহাম্মদ মুহিত, এম মোসাইদ  খান,হাসি খান, আনোয়ারুল ইসলাম অভি প্রমুখ।

DSC_4114

ছড়াপাঠ করেন  আবু তাহের,দিলু নাসের,রেজুয়ান মারুফ। সানতুর শিল্পী কুনাল সাহার মৌলিক গানের সাথে তার করা ফিউশন হলভর্তি দর্শকদের মুগ্ধ করে রাখে।

DSC_4044

অনুষ্ঠানে অতিথিরা সাংবাদিক ফারুক যোশী এবং কবি সাংবাদিক আনোয়ারুল ইসলাম অভির শিল্প সাহিত্য সংস্কৃতির অনলাইন- পলল, এম মোসাইদ খান এর হাড়ের মিছিল এবং কদম আলী লন্ডন ব্রিজ এবং আরাফাত তানিম রাত্রির শেষ পৃষ্ঠা কবিতাগ্রন্থ’ এর মোড়ক করা হয়। উৎসবকে কেন্দ্র করে বিলেতে সাপ্তাহিক সুরমা এবং পত্রিকা উৎসব সংখ্যা প্রকাশ করে। এছাড়াও অন্যান্য সংবাদপত্র ও ইলেকট্রনিকস মিডিয়া গুরুত্ব দিয়ে সংবাদ পরিবেশন করেছে।# DSC_4130 উল্লেখ্য ১৯৯৮ সালে কিছু কবি সাহিত্যিক এর উদ্যোগে ইষ্ট লন্ডনে  জন্ম নেয় সংহতি সাহিত্য পরিষদ । জন্মলগ্ন থেকে সংহতি বাংলা ভাষা এবং বাঙালীর মৌলিক ও আদর্শিক বিষয়ে ধারাবাহিক কাজের মাধ্যমে একটি নিরেট সাহিত্য সংগঠন কাজ করে আসছে।

DSC_3960

বিলেত থেকে  প্রথম বাংলা  মাসিক সাহিত্যের কাগজ, মঞ্চনাটক, নাটক,কবিতা উৎসব, সাহিত্যের মৌলিক ধারার আড্ডা, কবিতা বিষয়ক কর্মশালা, বর্ণবাদ  বিরোধী ও বহু ভাষাভাষীদের নিয়ে ইকুয়ালিটি ও ডাইর্ভাসিটি বিষয়ক কর্মশালা, জাতীয় ও আন্তর্জাতিক দিবস এবং বাঙালীর কৃষ্টি-ইতিহাস ও ঐতিহ্য বিষয়ক বিশেষ দিনগুলোতে  সংহতির মৌলিক কর্মকাণ্ড বিলেতে অগ্রগণ্য। DSC_3983 ২০০৮ সাল থেকে  সংহতি প্রতি বছর অভিবাসনে বসবাসরত বাংলা সাহিত্যে বিশেষ অবদানের জন্য সংহতি সম্মাননা পদক প্রদান করে আসছে। দুই হাজার পনের সাল থেকে সংহতি বাংলাদেশ সহ ইউরোপ,আমেরিকা, কানাডা, মধ্যপ্রাচ্য এবং কলকাতায় তার শাখার  আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম শুরু করেছে। DSC_4620

Advertisements

About shanghati

সংহতি আজ ২৫ বছরের যুবা। আজ থেকে ২৫ বছর আগে তৃতীয়বাংলায় কিছু তরুণ কবি ও সাহিত্যকর্মিদের প্রচেষ্টায় সংহতি সাহিত্য পরিষদের জন্ম হয়। জন্মলগ্ন থেকে সংহতি তার আদর্শ এবং কর্ম তৎপরতার মাধ্যমে একটি নিরেট সাহিত্য সংগঠনে পরিণত হয়েছে। বাংলা সাহিত্যের সব ক’টি ক্ষেত্রেই সংহতি সমান অবদান রেখে আসছে। সংহতি শুরুতে যুক্তরাজ্য থেকে সর্বপ্রথম মাসিক সাহিত্যের কাগজ প্রকাশনার মধ্যদিয়ে তার যাত্রা শুরু করে। তারপর ধাপে ধাপে বাংলা সাহিত্যের বিভিন্ন ক্ষেত্রে সংযোজন করছে ভিন্ন মাত্রা। ২০০৮ সাল থেকে বাংলাদেশ ও পশ্চিমবঙ্গের বাহিরে সর্বপ্রথম কবিতা উৎসব ও বহির্বিশ্বের বাংলাভাষার কবি সাহিত্যিকদের মূল্যায়নের লক্ষ্যে সাহিত্য পুরষ্কারের উদ্যোগ গ্রহণ করে। সংহতি কবিতা উৎসবকে কেন্দ্র করে প্রতি বছর বিশ্বের বিভিন্ন জায়গা থেকে অংশগ্রহণ করছেন কবি ও সাহিত্যিকরা।
This entry was posted in Uncategorized. Bookmark the permalink.

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s